কিভাবে তাওহীদের দিশা পেলাম

0/5 No votes

Report this app

Description

আল্লাহ রাসুলগণকে নির্দেশ দিয়েছেন তাওহীদের দাওয়াত প্রদান করতে। সর্বশেষ রাসুল মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তারঁ কওমকে এর দাওয়াত দিলে তারা তা অস্বীকার করে এবং অহংকার করে এর বিরোধিতা করে।

যেমন আল্লাহ কুরআন মজীদে উল্লেখ করেছেনঃ তাদেরকে যখন বলা হতো আল্লাহ ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই। উপাস্য নেই তখন তারা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত। [আস-সফফাত:৩৫] আরবের মুশরিকরা জানতো যে।

আল্লাহ ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই একথা মেনে নেয়ার অর্থ হচ্ছে; আল্লাহ ছাড়া অন্য কাউকে ডাকা কিংবা প্রার্থনা করা যাবে না। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, আজ কতিপয় মুসলমান মুখে আল্লাহর একতবাদের কথা বলে অথচ আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্যকে ডাকে ও দোয়া-প্রার্থনা করে। সত্যিই এরা তাওহীদের শিক্ষাকে বরবাদ করে দিচ্ছে।

এমনকি মাদ্রাসায় আল্লাহর গুণাবলী সংবলিত আয়াত সমূহের অপব্যাখা করা হয়। আর এটা অত্যন্ত দুঃখজনক যে’ অধিকাংশ মুসলিম দেশের মাদ্রাসাগুলিতেও মুসলিম শিক্ষকগণ আল্লাহর গুণাবলীতের একত্ববাদের মনগড়া ব্যাখ্যা প্রদান করেন। আমি এখানে এমনই একটি আয়াত উল্লেখ করছি যা উস্তাদগণ ভূল ব্যাখা করে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook comments